-->

Breaking News

কুমিল্লা মুরাদনগরে ভারসাম্যহীন নাছির মিয়াকে হত্যার দায়ে একজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

তাপস চন্দ্র সরকার, কুমিল্লা প্রতিনিধি: কুমিল্লার মুরাদনগরে মানসিক ভাবে ভারসাম্যহীন (পাগল) ভিকটিম মৃত মোঃ নাছির মিয়া @ নাসির পাগলকে হত্যার দায়ে একজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন কুমিল্লার আদালত। মঙ্গলবার (০৩ অক্টোবর ২০২৩) দুপুরবেলা কুমিল্লার বিজ্ঞ সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ মোঃ হেলাল উদ্দিন এ রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হলেন- কুমিল্লা জেলার মুরাদনগর উপজেলার বাখরনগর দক্ষিণ পাড়া মৃত রোশন আলীর ছেলে সোহাগ মিয়া (৩৮)

মামলার বিবরণে জানাযায়- ২০২১ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাত ১০টায় ভিকটিম নাছির ঘটনাস্থলে ঘুমিয়ে ছিল। পরদিন মসজিদের ইমাম আবদুল মোমেন এর মাধ্যমে বাদী জানতে পারে যে, মানসিক ভাবে ভারসাম্যহীন (পাগল) ভিকটিম মৃত মোঃ নাছির মিয়া @ নাসির পাগল (৩৮) মুরাদনগর থানাধীন বাখরনগর দক্ষিণ পাড়া কোম্পানীগঞ্জ হতে নবীনগর গামী সড়কের পশ্চিম পাশে জনৈক হাজী মোঃ ধনু মিয়া সওদাগরের নির্মানাধীন ২য় রুমে নাছিরের মৃত দেহ পড়ে আছে। সংবাদ পেয়ে বাদী ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখেন নাছির এর ঘাড়ের পেছনে ডান পাশে ধারালো অস্ত্রের গুরুতর কাটা রক্তাক্ত জখম দেখতে পায়। আসামী সোহাগ মিয়া (২৫) ঘটনার দিন রাত ১১টায় মোঃ জসিম উদ্দিন (৪০) ও মোঃ সেন্টু মিয়া (৩০) কে মুরাদনগর থানাধীন নগরপাড় কোম্পানীগঞ্জ হতে নবীনগর রোড এবং কুমিল্লা হতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া গামী রোডে একা পাইয়া আসামির হাতে থাকা ধারালো দা (টাকসাল) দ্বারা তাদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়ি ভাবে কোপাইয়া গুরুতর রক্তাক্ত কাটা জখম করত: নগর পাড় হইতে বাখরনগর এর দিকে চলিয়া যাইতে থাকিলে জখমী জসিম ও সেন্টু পিছু পিছু যেতে থাকে। আসামি বাখরনগর দক্ষিণ পাড়া কোম্পানীগঞ্জ হতে নবীনগর গামী সড়কের পশ্চিম পাশে জনৈক হাজী মোঃ ধনু মিয়া সওদাগরের নির্মানাধীন ২য় রুমে ভিকটিম নাছির ঘুমিয়ে থাকাবস্থায় আসামি তাহার হাতে থাকা ধারালো দা (টাকসাল) দ্বারা নাছিরের ঘাড়ে সজোরে কোপাইতে থাকিলে জসিম ও সেন্টু দেখিয়া চিৎকার করিলে আসামি দৌড়ে পালিয়ে যায়। 

এ বিষয়ে ঐদিন রাতে ভিকটিম নাছিরের বাবা কুমিল্লা দেবীদ্বার উপজেলার ভিংলাবাড়ীর মৃত আহাম্মদ আলীর ছেলে মোঃ আঃ আউয়াল (৬৫) বাদী হয়ে একই জেলার মুরাদনগর উপজেলার বাখরনগর দক্ষিণ পাড়া মৃত রোশন আলীর ছেলে মোঃ সোহাগ মিয়া (২৫) কে একমাত্র আসামি করে মুরাদনগর থানায় দণ্ডবিধির ৩০২ ধারার বিধানমতে একটি হত্যা মামলা দায়ের করিলে পরদিন আসামি গ্রেফতার পূর্বক বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করিলে আসামি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন।  তৎপর তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই বোরহান উদ্দিন মজুমদার ঘটনার তদন্তপূর্বক আসামী সোহাগ বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষে আনীত অভিযোগ প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হওয়ায় ২০২২ সালের ০৪ ফেব্রুয়ারী দণ্ডবিধির ৩২৩/৩২৪/৩২৬/৩০৭/৩০২ ধারার বিধানমতে বিজ্ঞ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন (যাহার অভিযোগপত্র নং-২৪)। পরবর্তীতে মামলাটি বিচারে আসিলে ২০২২ সালের ২২ জুন দণ্ডবিধির ৩০২ ধারার বিধানমতে আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করিলে রাষ্ট্রপক্ষে মানীত ২৫জন স্বাক্ষীর মধ্যে ০৮জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক শুনানী অন্তে এবং স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি পর্যালোচনাক্রমে আসামির বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় দণ্ডবিধির ৩০২ধারার বিধানমতে দোষী সাব্যস্তক্রমে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও দশ হাজার  টাকা অর্থ দণ্ড, অনাদায়ে এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন আদালত। রায় ঘোষণাকালে আসামি আদালত কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন। প্রকাশ থাকে যে, আসামি সোহাগ মিয়া ২০২১ সালের গ্রেফতার হওয়ার পর থেকে অধ্যাবদি জেল হাজতে আটক আছেন।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন বিজ্ঞ জেলা পিপি এডভোকেট মোঃ জহিরুল ইসলাম সেলিম এবং আসামিপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন State defence lawyer এডভোকেট মোঃ জাহাঙ্গীর আলম। 


No comments