-->

Breaking News

সাক্কুর এই ৭৮টি ফ্ল্যাটের হিসাব তার ইনকাম ট্যাক্সের ফাইলে যদি না থাকে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে: এমপি বাহার

তাপস চন্দ্র সরকার, কুমিল্লা প্রতিনিধি: কুমিল্লা সদর আসনের সংসদ সদস্য ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার বলেছেন- মনিরুল হক সাক্কু গত তিন টার্ম কুমিল্লার মেয়র ছিলেন। কিন্তু কোনো উন্নয়ন হয়নি। সাক্কু মেয়র ছিলেন; আকবর হোসেন মন্ত্রী ছিলেন তারপরও কোনো উন্নয়ন হয় নাই কিন্তু আমি যখন এমপি হলাম কুমিল্লার উন্নয়ন হয়েছে। আমি টাকা এনে দিয়েছি, সাক্কু সাহেব লুটপাট করে নিয়ে গেছে। আপনাদের হকের টাকা সে নিয়ে গেছে। কুমিল্লার মানুষের রক্তবেচার টাকা দিয়ে সে ৭৮টি ফ্ল্যাট করেছে। এই ৭৮টি ফ্ল্যাট কোথা থেকে আসলো? আমি এর আগেও এই অবৈধ সম্পদের হিসাব নেওয়ার জন্য নির্বাচন কমিশনারকে বলেছিলাম। আমি আবারো বলতে চাই; সাক্কুর এই ৭৮টি ফ্ল্যাটের হিসাব তার ইনকাম ট্যাক্সের ফাইলে যদি না থাকে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। আপনাদের টাকা লুট করে সে ভোট আসলে ভোট কিনতে চায়।

বৃহস্পতিবার (৭সেপ্টেম্বর) দক্ষিণ চর্থা হোচ্চামিয়া লুৎফুর্নেসা স্কুল মাঠে রাত্রে ৮ ঘটিকায় কুমিল্লা মহানগরীর ১৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি বাহার এসব কথা বলেন।

সম্মেলনে প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরফানুল হক রিফাত।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি বাহার আরো বলেন। কুমিল্লা শহরের প্রধান সমস্যা যানজট। শহরের সুন্দর সুন্দর বিল্ডিং হয়েছে। এই বিল্ডিং তৈরি করার জন্য আমি সিটি কর্পোরেশন তৈরি করি নাই। আমার শহরের মানুষের নাগরিক সুবিধা বৃদ্ধি করতে হবে। সারা শহরে টাকা নিয়ে নিয়ে অপরিকল্পিতভাবে বিল্ডিংয়ের প্ল্যান পাশ করেছে। দিপিকা মার্কেটে ৮৫ লাখ টাকা নিয়েছে প্ল্যান পাশ করার জন্য। প্ল্যানেট এসআরে ৮০ লাখ টাকা নিয়েছে প্ল্যান পাশ করতে। এইমনিভাবে যতো বিল্ডিং আছে টাকা নিয়ে সবগুলোর প্ল্যান পাশ করেছে। কুমিল্লা শহরে সোনালী স্কয়ার ছাড়া আর কোনো মার্কেট নিয়ম মেনে তৈরি করা হয়নি। এক ঘন্টা বৃষ্টি আসলে কুমিল্লা শহর ডুবে যায়। আমি আপনাদের সন্তান হিসেবে রিফাত সাহেবকে নিয়ে কাজ শুরু করেছি। ইনশাল্লাহ আমরা চেষ্টা করবো, কুমিল্লার মানুষ যেনো মহানগরের সুযোগ-সুবিধা পায়।

তিনি বলেন- সামনে জাতীয় নির্বাচন। যখনই নির্বাচন আসে তখনই চক্রান্ত শুরু হয়। এটা উপজেলা নির্বাচন হউক, পার্লামেন্ট নির্বাচন হউক, সিটি নির্বাচন হউক। আজকেও সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে চক্রান্ত শুরু হয়েছে শেখ হাসিনাকে যেনো ক্ষমতা থেকে নামিয়ে দেওয়া যায়। যারা সারাবছর মাঠে আসে নাই, চেহারা দেখা যায় নাই, আগামী নির্বাচনে তাদেরকে দেখবেন। তারা এসে আপনাদেরকে বলবে ভোট দেন। তাদেরকে ভোট দেওয়া যাবে? না দেওয়া যাবে না। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের উন্নয়নে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই। আগামী নির্বাচনে নৌকায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আনতে হবে। দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হবে। গিয়াস উদ্দিন কাউসার সভাপতিত্বে এবং কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক ডাঃ তাহসিন বাহার সূচনা এর সঞ্চালনায় সম্মেলনে অনুষ্ঠিত হয়।

সন্মেলনে গিয়াস উদ্দিন কাউসারকে সভাপতি ও কাইয়ুম খান বাবুলকে সাধারণ সম্পাদক করে ১৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ৬৯ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়।

No comments