ডাচদের লক্ষ্য মেসিকে আটকানো

ডাচদের লক্ষ্য মেসিকে আটকানো

নিলয়; স্পোর্টস ডেস্ক:

গ্রুপ পর্বে কঠিন কোন প্রতিপক্ষের মুখোমুখি না হয়ে শেষ ষোলোয় জায়গা করে নেয় লুইস ফন গালের শিষ্যরা। গ্রুপ পর্বের প্রথম ম্যাচে সেনেগালের বিপক্ষে ২-০ গোলের জয়, দ্বিতীয় ম্যাচে ইকুয়েডরের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র এরপর দুর্বল কাতারের বিপক্ষে ২-০ গোলের জয় নিয়ে রাউন্ড অফ সিক্সটিনে উঠে আসে নেদারল্যান্ডস। রাউন্ড অফ সিক্সটিনে যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে ৩-১ গোলে উড়িয়ে দিয়ে শেষ আট নিশ্চিত করে ডাচরা। বেশ ফুরফুরে থাকা কোয়ার্টার ফাইনালে ডাচদের সামনে এবার কঠিন প্রতিপক্ষ আর্জেন্টিনা। 

অন্য দিকে গ্রুপ পর্বে সৌদি আরবের সঙ্গে প্রথম ম্যাচ হারলেও বাকি দুই ম্যাচ বেশ দাপুটের সঙ্গে জয় এবং গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে রাউন্ড অফ সিক্সটিনে আসে মেসিরা। ২য় পর্বে আলবিসেলেস্তরা হারিয়েছে এশিয়ার প্রতিনিধিত্ব করা অস্ট্রেলিয়াকে।

কাগজে কলমে বিশ্বকাপের অন্যতম হট ফেভারিটদের কোয়ার্টার ফাইনালের প্রতিপক্ষ নেদারল্যান্ডস। দুই বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ম্যারাডনারদেশ আর্জেন্টিনা অন্যদিকে তিন বার ফাইনাল খেললেও চ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বাদ গ্রহণ করতে পারেনি ইউরোপের প্রতিনিধিত্ব করা নেদারল্যান্ডস।  

কোয়ার্টার ফাইনালে ১০ তারিখ দিবাগত রাত ১ টায় মুখোমুখি দুই দলের লড়াই যে বেশ জমবে সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না।

ডাচদের সবচেয়ে ভয়ের কারণ ফুটবল জাদুকর লিওনেল মেসিকে ঘিরে। গ্রুপ পর্ব থেকে বলা যায় একায় আর্জেন্টিনাকে টেনে নিয়ে এসছে লিওনেল মেসি। নিজে গোল করছেন সতীর্থদের দিয়ে গোল করাচ্ছেন। সব মিলিয়ে কাতার বিশ্বকাপে দারুন ফর্মে রয়েছে আর্জেন্টাইন অধিনায়ক লিওনেল মেসি। 

মেসি, আলভারেজ, ম্যাক অ্যালিস্টার, দি মারিয়া, লাওতারো মার্তিনেজদের বিপক্ষে নেদারল্যান্ডস জয়ের জন্য ছক কষছেন নেদারল্যান্ডসের কোচ লুই ফন গাল। তবে সেই ছকে যে মেসিকে থামানোর বিষয়টা যে আলাদা করেই থাকবে, তা বলে দেওয়াই যায়। বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার মধ্যমণি হয়েই আছেন মেসি। মেক্সিকো, পোল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া—তিন ম্যাচেই মেসি ছিলেন দুর্দান্ত। মেক্সিকো ও অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে নিজে গোল করেছেন, গোল করিয়েছেনও। ম্যাচের যে কোন অবস্থায় ফলাফল নিজেদের পক্ষে নিয়ে যাওয়ার সামর্থ্য রয়েছে বার্সেলোনার সাবেক এ তারকার। ২০১৪ সালে ট্রাইবেকারে নেদারল্যান্ডস কে হারিয়ে বিশ্বকাপ ফাইনালে উঠেছিলো লিওনেল স্ক্যালোনির শিষ্যরা। সেবার ও নেদারল্যান্ডসের কোচ ছিলেন লুইস। তাই তিনি ভালোভাবে মেসিদের খেলা সম্পর্কে জানেন। 

২০১৪ সালের সেমিফাইনালের সে ম্যাচে মেসি ছিলেন মূল একাদশের সদস্য মাঠে তেমন কোন আক্রমণ কিংবা প্রতিপক্ষকে ভয় দেখানোর মত কিছুই করতে পারেননি। পুরো খেলায় মাত্র একটি শট অন টার্গেট নিতে পেরেছিলেন মেসি। তবে এর পিছনেও একটা কারণ রয়েছে মেসিকে নিচে আটকে রেখেছিলেন ডাচদের তারকা খেলোয়াড় নাইজেল ডি ইয়ংক। পুরো ম্যাচ মেসিকে মার্ক করে রেখেছে ডি ইং। 

কালকের ম্যাচেও মেসিকে আটনাকোর ডি ইয়ংয়ের সেই কাজটা খুব সম্ভবত করতে হবে মার্টেন ডি রুন কে। মার্টেন ডি রুনের কাজ থাকবে মেসিকে দেওয়া পাস গুলোকে নষ্ট করা। কিংবা আক্রমণ ভাগ থেকে মেসিকে শট অন টার্গেট করতে না দেওয়া। মেসি যদি মার্টিনকে টপকে বল নিয়ে ডাচদের দিকে এগিয়ে যান তবে আটকানোর কাজটা করবেন ভার্জিল ফন ডাইক।

কোয়ার্টার ফাইনালে মেসিকে আটকানো পরিকল্পনা যতই করুক ডাচ কোচ, ফুটবল বিশ্বের অন্যতম তারকাকে যে আটকিয়ে রাখা কঠিন সেটাও বিশ্বাস করেন ডাচ কোচ লুইস ফন গাল

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url